RSS

Monthly Archives: অগাষ্ট 2011

কালিকা উপনিষদ্

ব্রহ্মরূপিণী সর্ব-ঐশ্বর্যশালিনী কালীকে ব্রহ্মরন্ধ্রেই প্রাপ্ত হওয়া যায়।। ১ ।।

তিনি সত্ত্ব, রজঃ ও তমো – এই তিন গুণ বিবর্জিতা; তিনিই সকল জীবের রূপে বিরাজমানা বা ‘ক্রীং’ অক্ষররূপা।। ২ ।।

ক্রীং বীজমন্ত্র তিনবার উচ্চারণ করে কূর্চবীজ হুং মন্ত্র দুবার উচ্চারণ করবে। তারপর দুবার ভূবনাবীজ হ্রীং মন্ত্র উচ্চারণ করে ‘দক্ষিণে কালিকে’ বলিয়াকে মাকে দর্শন করবে। ঐ হ্রীং মন্ত্রের সঙ্গে সপ্তবীজ উচ্চারণ করে অগ্নিপত্নী অর্থাৎ স্বাহা মন্ত্র যোগ করবে। এই মন্ত্র জপ করলে সাধক শিবময় হন।। ৩ ।।

তাঁরই সদগতি হয়, অপরের হয় না। তিনি নরশ্রেষ্ঠ, দেবশ্রেষ্ঠ ও সর্বশ্রেষ্ঠ হন। নতুন কালো মেঘের মতো যাঁর গায়ের রং, যিনি নিবিড়স্তনী, করাল দন্তবিশিষ্টা ও শবাসনা, সেই পরাপ্রকৃতি কালীকে ধ্যান করবে।। ৪ ।।

ত্রিকোণ বা নয় কোণবিশিষ্ট পদ্মের উপর ষড়ঙ্গন্যাস করে প্রকাশশীলা পরাপ্রকৃতিকে অর্চনা করবে। তাঁর দ্বারাই সর্বাঙ্গ প্রাপ্ত হবে।। ৫।।

কালী, কপালিনী, কুল্লা, কুরুকুল্লা, বিরোধিনী, বিপ্রচিত্তা, উগ্রা, উগ্রপ্রভা, দীপ্তা, নীলা, ঘনা, বলাকা, মাত্রা, মুদ্রা, মৃতা – এই পনেরোজন জ্যোতির্ময়ী দেবী পনেরোটি কোণে বিরাজ করছেন।। ৬।।

ব্রাহ্মী, মাহেশ্বরী, ঐন্ত্রী, চামুণ্ডা, কৌমারী, অপরাজিতা, বারাহী ও নারসিংহী – এঁরা অষ্টদলস্থিতা দেবী। দুই, তিন, চার, ছয়, বারো, আঠারো, চোদ্দো বা ষোলোস্থানীয় স্বরবিশেষ দ্বারা প্রণবের সঙ্গে এঁদের আমন্ত্রণ জানাতে হয় এবং মূলমন্ত্রের দ্বারা অঙ্গদেবতার আবাহন করে মূলমন্ত্রের দ্বারাই পূজা করতে হয়।। ৭ ।।

যে সাধক এই মন্ত্রগুলি নিয়মিত বা অনিয়মিতভাবে লক্ষ লক্ষ জপ করতে পারবেন, তিনি নিশ্চয়ই পাপমুক্ত হবেন। তাঁর দ্বারা আর দুষ্কার্জ হবে না, তিনি ব্রহ্মত্ব লাভ করবেন। তিনি সকল লোক হতে মুক্ত হয়ে আয়ু, আরোগ্য ও ঐশ্বর্যের পূর্ণ অধিকারী হবেন।। ৮ ।।

পঞ্চমকারের বেদসম্মত আধ্যাত্মিক অর্থ বুঝে যিনি তাঁর পূজা করবেন, তিনিই সতত ভজনশীল, তিনিই ভক্ত। তাঁর প্রচ্ছন্নতা দূর হয়ে মহত্ব প্রকাশিত হয়। তিনি নিরবিচ্ছিন্ন সুখ শান্তি লাভ করে সংসারপাশ থেকে চিরমুক্ত হন। সিদ্ধমন্ত্রজপকারী সাধকের অনিমাদি অষ্টসিদ্ধি লাভ হয়। তিনি জীবন্মুক্ত, সর্বশাস্ত্রবিদ হন। তাঁর হিংসাবৃত্তি বিনষ্ট হওয়ায় তিনি সকল জীবের বিশ্বাসভাজন হন।। ৯।।

সিদ্ধমন্ত্র যিনি জপ করেন তাঁর কাছে রাজাও ভৃত্যস্বরূপ হয়। সেই সাধক বিশ্বাতীত পরাৎপর আনন্দময় শিবস্বরূপ হন। এই সর্বদেবাত্মক বীজমন্ত্র যিনি জপ করেন, তিনি শিবস্বরূপ হন, এবং অনিমাদি অষ্টসিদ্ধির প্রভু হয়ে কালিকাকে লাভ করতে সক্ষম হন। শিব বলেছেন, হে দেবী, যিনি এই ঘোরা দক্ষিণাকালীকে ধ্যান করেন, তিনি কৃৎকর্তব্য, নিষ্পাপ, আমাদের উভয়ের কৃপাপাত্র ও জীবন্মুক্ত হন।। ১০।।

জপের দশমাংশ হোম করা উচিত, তাহলেই কালী তৃপ্ত হন। এতে জ্ঞান নিরুদ্ধ হয় না। কারণ দেবী সরস্বতীও অনিরুদ্ধা হয়ে চিরদিন সব কামনা পূর্ণ করেন। যে সাধক শ্রদ্ধাসহকারে এই কালীমন্ত্র জপ করেন, তিনি জ্ঞানলাভ করে চিরমুক্ত হন। শান্তচিত্তে সবসময় কালীপূজায় নিরত থেকে দিনের বেলা ব্রহ্মচারী অর্থাৎ ব্রহ্মনিষ্ঠ এবং রাতে কৌপিনধারী, আত্মরমণপরায়ণ ও জপপূজানিয়মে তৎপর হয়ে মাতৃরূপ নারীগণের সশ্রদ্ধ আজ্ঞাবহ হবে।। ১১।।

তারপর শুদ্ধ জলে তর্পণ ও পূজা করবে এবং সবসময় আত্মাকে কালীরূপে চিন্তা করবে। সকল স্ত্রীলোকের অনুগত হবে, তাতেই যাবতীয় হত্যাপাপ থেকে মুক্তিলাভ করতে পারবে। তারপর পঞ্চমকারের দ্বারা পূজা করলে ধনধান্য, পশু ও বিদ্যা প্রভৃতি যাবতীয় কাম্যবস্তু লাভ করবে। অতীত-ভবিষ্যৎ, দৃশ্যাদৃশ্য, স্থাবরজঙ্গম যা কিছু আছে, তা সবই কালীর কলামাত্র। কালিকাতন্ত্রে কথিত আছে, তিনি শ্রবণীয়, জ্ঞাতব্য, স্মরণীয় বা ধ্যানযোগ্য। শিব বলেছেন, হে দেবী, এই কালীমন্ত্রজপকারী অগম্যাগমন-পাপ ও ভ্রুণহত্যা-পাপ থেকে মুক্ত হয়ে সর্বসুখভাগী হয়ে থাকেন। তিনি সর্ববেত্তা, সর্বত্যাগী, নিঃসঙ্গ, শুদ্ধবুদ্ধি, সর্ববেদজ্ঞ, সর্বমন্ত্রজপকারী, সর্বশাস্ত্রজ্ঞ ও সর্বযজ্ঞকারী হয়ে তোমার ও আমার অত্যন্ত প্রিয় হন।। ১২।।

শিব আরও বলেছেন, সাধক সংশয়শূন্য হয়ে সব কাজ মনের দ্বারা সম্পাদনা করবেন এবং তারপর অপূর্ব জ্যোতির্ময় ত্রিকোণ মূলাধার চিন্তা করে সেই মূলাধারের অধঃ ও উর্ধ্বে সুষুম্নাকে স্থাপন করবে।। ১৩।।

নীলমেঘের মধ্যে স্থিতা, দীপ্তিশালিনী, বিদ্যুৎরেখাসমা, সূর্যের মতো অতুলনীয়া নীলা ও পীতা দেবীকে স্মরণ করবে এবং শিখামধ্যে সবার উপরে বিরাজিতা কালীকে ধ্যান করবে। তাহলেই সাধক সর্বপাপমুক্ত হয়ে শিব ও ব্রহ্মস্বরূপ হবেন এবং সকল মন্ত্র সিদ্ধ হয়ে কৈবল্য বা মুক্তি লাভ করবেন। ঐ মন্ত্রের ঋষি ভৈরব, ছন্দ অনুষ্টুপ, দেবতা কালিকা, বীজ লজ্জা, শক্তি বধূ এবং কবিত্বের জন্যই প্রয়োগ হয়ে থাকে। সাধক এইভাবে ঋষি ও ছন্দ জেনে মন্ত্রের ফল সম্পূর্ণরূপে লাভ করেন এবং যিনি এই সর্ববিদ্যা প্রথমে এক, দুই বা তিন নামে পুটিত করে জপ করেন, তিনিই সদ্গতি প্রাপ্ত হন, অন্যে হয় না।। ১৪ ।।

গোরু, ভূমি, সোনা ইত্যাদি দিয়ে গুরুকে তুষ্ট করে এই শ্রেষ্ঠ মন্ত্র লাভ করবে। গুরুও এই মন্ত্র কুলীন, বিদ্যাভক্ত, শুশ্রুষাপরায়ণ শিষ্যকে প্রদান করবেন। স্ত্রীদিগকে স্পর্শ ও পূজা করে রাতে শিবমন্দিরে একাকী বাস করে লক্ষ বা তার বেশি মন্ত্রজপ করার পর সেই মন্ত্র শিষ্যকে প্রদান করবে। সত্য যে, কালীমন্ত্র, ত্রিপুরামন্ত্র ও দুর্গামন্ত্র ছাড়া সিদ্ধিলাভ সম্ভব নয়। আমিই দুর্গা, আমিই শিব। ওঁ তৎসৎ।। ১৫।।

কালিকা উপনিষদ্ সমাপ্ত

(সতীশচন্দ্র মুখোপাধ্যায় সম্পাদিত ও বসুমতী সাহিত্য মন্দির প্রকাশিত উপনিষৎ গ্রন্থাবলী তৃতীয় খণ্ডের বঙ্গানুবাদ অনুসারে।)

(আলোকচিত্র: অর্ণব দত্ত)

 

ট্যাগ সমুহঃ

কীভাবে গড়ে উঠল আমাদের সংবিধান?

সংবিধান দেশের মৌলিক আইন। দেশের সরকারের মূলনীতিগুলি প্রতিফলিত হয় সংবিধানে। সংবিধান শুধু সরকারের বিভিন্ন অঙ্গের গঠন ও কাজকর্মের রূপরেখাই ঠিক করে না, বরং সরকারের সঙ্গে দেশের আমজনতার সম্পর্ক কেমন হবে তাও বলে দেয়। ব্রিটিশ যুক্তরাজ্য ছাড়া বিশ্বের প্রায় সব গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রেরই লিখিত সংবিধান রয়েছে।

স্বাধীনতার পর আমাদের দেশে সংবিধান রচনার জন্য একটি গণপরিষদ স্থাপন করা হয়েছিল। এই গণপরিষদই ভারতীয় সংবিধানের রচয়িতা ও প্রবর্তক। ঔপনিবেশিক যুগের বিভিন্ন আইন ও সনদ এই সংবিধানের উপরে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে প্রভাব ফেলেছিল। তাই বর্তমান ভারতের সংবিধান রচনার ইতিহাস আলোচনার আগেই সেই পুরনো সনদ ও আইনগুলির ইতিহাসও জেনে নেওয়া জরুরি।

Read the rest of this entry »

 

ট্যাগ সমুহঃ

ফিরে দেখা দুর্গাপূজা :: আহিরীটোলা শীতলাতলা সর্বজনীন দুর্গোৎসব (২০১০)

প্রতিমা

আহিরীটোলা শীতলাতলা সর্বজনীনের থিম ছিল সমুদ্রের তলদেশ। মণ্ডপটি বাইরে থেকে দেখতে ছিল সাবেকি পালতোলা বাংলা নৌকা। কিন্তু মণ্ডপের ভিতরে তৈরি করা হয়েছিল সাগরতলের কৃত্রিম আবহ। বাঁশ কেটে কঞ্চি দিয়ে তৈরি করা মণ্ডপ। ভিতরে ঝিনুকের মাছ আর বেলের খোলা দিয়ে তৈরি করা প্রবালের কারুকাজ। স্বচ্ছ প্লাস্টিকের টিউবের মধ্যে জলের স্রোত বইয়ে সমুদ্রের আমেজ আনা হয়েছিল। তবে আলো কম থাকায় সেই অসাধারণ মণ্ডপের ভিতরকার ছবি তুলতে পারিনি।

অবশ্য দুর্গাপ্রতিমার ছবি তুলতে পেরেছিলাম। মূর্তিতে ছিল পাথরের এফেক্ট। দর্শনীয়, দেবীর পাঁচ হাতে ধরা ছিল মোষের শিং, আর বাকি পাঁচ হাতে ত্রিশূল। পুজোটির বাজেট ছিল ৮-১০ লাখ টাকা। থিম পরিকল্পনা করেছিলেন গৌরাঙ্গ কুইল্যা।

মণ্ডপ (বাইরে থেকে)

 

ট্যাগ সমুহঃ

আমার ক্যামেরায় দুর্গাপূজা :: ফিরে দেখা বড়িশা ক্লাব ২০০৯

বড়িশা ক্লাবের ২০০৯  সালের থিম ছিল, যতদূর মনে পড়ছে, মাটি। এই বছরই আমি প্রথম বড়িশা ক্লাবের ঠাকুর দেখেছিলাম। সঙ্গে তুলেছিলাম তিনটি ছবি। সেগুলি শেয়ার করা গেল এখানে।

প্রতিমা

 

মাটির মণ্ডপ, সামনে দর্শনার্থীর লাইন

 

মণ্ডপের ভিতরের দেওয়ালে গ্রামবাংলার দৃশ্য

 

 

 

ট্যাগ সমুহঃ

প্রাগৈতিহাসিক ভারত

মধ্যভারতে পাওয়া আদিম মানুষের আঁকা গুহাচিত্র

প্যালিওলিথিক যুগ বা প্রাচীন প্রস্তর যুগ

ভারতে মানুষের অস্তিত্বের সবচেয়ে পুরনো যে নিদর্শনগুলি পাওয়া গিয়েছে তা ৪,০০,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে ২,০০,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মধ্যবর্তী কোনো এক সময়ের। অর্থাৎ, পরিভাষায় যাকে বলে দ্বিতীয় আন্তঃহিমযুগ, সেই যুগের। অধুনা পাকিস্তানের সোয়ান উপত্যকা ও দক্ষিণ ভারতে (প্রধানত চেন্নাইয়ের আশেপাশে) এই সময়কার অনেক প্রাচীন পাথরের যন্ত্রপাতি ও জিনিসপত্র পাওয়া গিয়েছে। ভারতীয় উপমহাদেশে প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় বা প্যালিওলিথিক আদিম মানুষের অস্তিত্ব ছিল ৮০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত। এই সময়কার মানুষ ঠুকরে ভাঙা পাথর দিয়ে তৈরি নানা জিনিস ব্যবহার করত। সিন্ধু, গঙ্গা ও যমুনা নদীর পলিগঠিত সমভূমি অঞ্চল ছাড়া ভারতের আর সব অঞ্চলেই এই সব জিনিস পাওয়া গিয়েছে। শক্তপোক্ত চকমকি পাথর দিয়ে সহজে ফলা তৈরি করা যেত। তাই এই পাথরের ব্যবহারই ছিল বেশি। পাথরের যন্ত্রপাতি নানা কাজে লাগত। যেমন, মৃত জন্তুর চামড়া ছাড়ানো, মাংস কাটা বা হাড় ছাড়ানো ইত্যাদি। এই সময়কার মানুষ মূলত ছিল খাদ্য-সংগ্রাহক। খাদ্যের জন্য মানুষ পুরোপুরি নির্ভর করত প্রকৃতির উপর। খেত শিকার করা পশুর মাংস আর ফলমূল। পরে আগুনের ব্যবহার শেখার পরে তাদের জীবনযাত্রার ধরন একেবারে আমূল বদলে যায়। তারা পশুর চামড়া, গাছের বাকল আর বড়ো বড়ো পাতা পোষাক হিসেবে ব্যবহার করত আর নারী, পুরুষ ও শিশু নিয়ে গঠিত ছোটো ছোটো দলে বিভক্ত হয়ে ঘুরে বেড়াত।

Read the rest of this entry »

 
১ টি মন্তব্য

Posted by চালু করুন অগাষ্ট 16, 2011 in পুরনো লেখা

 

ট্যাগ সমুহঃ

প্রাক-কংগ্রেসি জাতীয়তাবাদী সংগঠন

উনিশ শতকের দ্বিতীয় ভাগে ভারতীয়দের কাছে বিদেশি শাসকের শোষক রূপটি প্রকট হয়ে পড়লে, তাঁরা ভারতের জন্য একটি কল্যাণ ও উন্নয়নমুখী নীতির পক্ষে সওয়াল শুরু করেন। জাতীয়তাবাদীদের সংগঠিত আন্দোলন শুরু হয় উনিশ শতকের শেষ দশকে, তবে রাজনৈতিক সংগঠনের ব্যাপারটা শুরু হয়েছিল তার অনেক আগে। ১৮৫০-এর দশকে ব্রিটিশ প্রেসিডেন্সিগুলির রাজধানীতে কয়েকটি ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক সংগঠন গড়ে ওঠে। এই সব সংগঠনের সদস্যরা ব্রিটিশ পার্লামেন্টে প্রভাব খাটিয়ে ১৮৫৩ সালের সনদের পুনর্নবীকরণ করতে চেয়েছিলেন। পরের দুই দশক ভারতীয় রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তার করে রেখেছিল এই সংগঠনগুলিই।

বাংলার সবচেয়ে পুরনো রাজনৈতিক সংগঠন ছিল ল্যান্ডহোল্ডারস’ সোসাইটি (১৮৩৮) ও ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান সোসাইটি (১৮৪৩)। এই দুটি সংগঠন পরে এক হয়ে গঠন করে ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন (১৮৫১)। এর প্রথম সভাপতি  ও প্রথম সচিব হন যথাক্রমে রাধাকান্ত দেব ও মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকু্র। অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে উল্লেখ করা যায় রামগোপাল ঘোষ ও প্যারীচাঁদ মিত্রের নাম। অ্যাসোসিয়েশনের মুখপত্র হিন্দু প্যাট্রিয়ট -এর ভাষা ছিল রাজনৈতিকভাবে বেশ উগ্র। ১৮৫২ সালে এই সংগঠন প্রথম ব্রিটিশ পার্লামেন্টে একটি দরখাস্ত পাঠায়। তাঁদের দাবি ছিল আইনবিভাগ ও শাসনবিভাগের পৃথকীকরণ, উচ্চ সরকারি পদে আরও বেশি সংখ্যায় ভারতীয়দের নিয়োগ, ইংল্যান্ড ও ভারতে একই সঙ্গে সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা গ্রহণ, ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের বিস্তার, লবণ শুল্ক,অন্তঃশুল্ক (এক্সাইজ ডিউটি) ও মুদ্রাঙ্ক শুল্কের (স্ট্যাম্প ডিউটি) বিলোপ এবং শিক্ষাক্ষেত্রে অনুদান বৃদ্ধি। ১৮৫৩ সালের সনদে এই সব দাবির একটিও মানা হয়নি। তাই অ্যাসোসিয়েশন আন্দোলন চালিয়ে যায়। তবে এই নরমপন্থী লাভের লাভ কিছু হয়নি।

Read the rest of this entry »

 

ট্যাগ সমুহঃ

আমাদের জাতীয় সংগীত

আমাদের জাতীয় সংগীত ‘জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে’। রচয়িতা গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। মূল রচনার ভাষা বাংলা। রচনাকাল জানা যায় না। প্রথম গাওয়া হয় ১৯১১ সালে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের এক অধিবেশনে। পাঁচ স্তবকের গানটির প্রথম স্তবকটি ১৯৫০ সালে সরকারিভাবে ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের জাতীয় সংগীতের স্বীকৃতি লাভ করে। একই মর্যাদা লাভ করে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের লেখা ‘বন্দে মাতরম্’ গানটিও। ‘বন্দে মাতরম্’ হয় ভারতের জাতীয় স্তোত্র বা ন্যাশানাল সং। ‘জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে’ হয় জাতীয় সংগীত বা ন্যাশানাল অ্যানথেম।

মূল গানটি ইমন রাগে কাহারবা তালে নিবদ্ধ। স্বরলিপিকার দিনেন্দ্রনাথ ঠাকুর। স্বরবিতান ১৬শ খণ্ডে এর স্বরলিপি রয়েছে। ভারত সরকার অনুমোদিত জাতীয় সংগীতের স্বরলিপি মুদ্রিত হয়েছে বিশ্বভারতী প্রকাশিত ‘রাষ্ট্রসংগীত’ স্বরলিপি-পুস্তিকায়।

Read the rest of this entry »

 
১ টি মন্তব্য

Posted by চালু করুন অগাষ্ট 15, 2011 in পুরনো লেখা

 

ট্যাগ সমুহঃ